ছবির কপিরাইট SOPA Images

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ব্যবস্থাপনার নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে নেয়ার পর ২৪ ঘন্টায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর পুরোদমে কাজ শুরু করতে পারেনি বলে জানা গেছে।

কিন্তু রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট বা আইইডিসিআর-এর কাছ থেকে পরীক্ষার দায়িত্ব সরিয়ে নেয়ার ঘটনা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সৃষ্টি হয়েছে।

আইইডিসিআর ব্যর্থ হয়েছে নাকি সরকারের আগের পরিকল্পনাতেই গলদ ছিল- এমন সব প্রশ্ন অনেকেই তুলেছেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং আইইডিসিআর-এই দু'টি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের অনেকের সাথে কথা বলে মনে হয়েছে, তারা বিষয়টিকে ভিন্ন ভিন্ন ভাবে দেখেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের মূল যুক্তি হচ্ছে, আইইডিসিআর তাদের প্রধান কাজ অর্থ্যাৎ সারাদেশে ল্যাবগুলোর মান নিয়ন্ত্রণ এবং সংক্রমণ পরিস্থিতির বিশ্লেষণ করার ক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়েছে। একইসাথে সারা দেশে নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষার কাজও সঠিকভাবে হয়নি।

এসব বক্তব্যের ব্যাপারে যুক্তি দিতে গিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সূত্রগুলো বলেছে, গত সপ্তাহে আইইডিসিআর-এর ল্যাব সংক্রমিত হয়েছিল এবং সেজন্য সেই ল্যাবে ২৪ ঘন্টা পরীক্ষা বন্ধ রাখতে হয়েছিল। আইইডিসিআর-এর ল্যাবে কাজ করতে গিয়ে তাদের কয়েকজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার কথাও বলা হচ্ছে।

আইইডিসিআর-এর ল্যাবে কেন এমন সমস্যা হবে, সেই প্রশ্নও তোলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সূত্রগুলো।

তবে আইইডিসিআর-এর কর্মকর্তারা সংক্রমণের কারণে তাদের ল্যাবে পরীক্ষা বন্ধ রাখার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সূত্রগুলো বলেছে, এখন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে, এই পরিস্থিতিতে ২৪ ঘন্টায় কমপক্ষে ১০ হাজার নমুনা পরীক্ষার টার্গেট করা হচ্ছে। এই বড় অংকের নমুনা সংগ্রহ এবং দেখভালের দায়িত্ব পালনের ক্ষমতা আইইডিসিআর এর নেই বলে সূত্রগুলো মনে করছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বিবিসিকে বলেছেন, "করোনাভাইরাস সারাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে। সেজন্য পরীক্ষা আরও বাড়ানো প্রয়োজন। এখন ৩১টি ল্যাবে পরীক্ষা হচ্ছে। এই ল্যাবগুলোর মান দেখার দায়িত্ব আইইডিসিআর এর।

''তাদের আরও দায়িত্ব আছে। যেমন লক্ষণ ছাড়া অনেকের মৃত্যু হচ্ছে এবং পুলিশ সহ অনেক পেশার মানুষ সংক্রমিত হচ্ছেন। কেন এটা হচ্ছে তা জানা দরকার। পরিস্থিতির বিশ্লেষণ করা প্রয়োজন। আইইডিসিআর-এর ম্যান্ডেট হলো এই কাজগুলো করা। তারা এখন সেই কাজ করবে। আমরা আলোচনা করেই এটা ঠিক করেছি।"

তিনি আরও বলেছেন, "আইইডিসিআর-কে এখন রিসার্চ এবং রেফারেন্স ল্যাব করা হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন ল্যাবে যেসব পরীক্ষা হচ্ছে, সেগুলোর মান নিয়ে তারা এখন গবেষণা করবে।"

ঘটনাটিকে ঘিরে আইইডিসিআর কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানিকভাবে কিছু বলেননি।

ছবির কপিরাইট Getty Images Image caption ইনফ্রারেড হ্যান্ডহেল্ড থার্মোমিটার দিয়ে তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে।

তবে প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন সূত্র বলেছে, করোনাভাইরাস পরিস্থিতির শুরু থেকেই আইইডিসিআর সামনের সারিতে ছিল। সেই প্রেক্ষাপটে পরীক্ষার ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব থেকে তাদের কাছ থেকে সরিয়ে দেয়ার ক্ষেত্রে সরকারেরই কোন কোন প্রতিষ্ঠানের ঈর্ষা থাকতে পারে।

এছাড়া এই সূত্রগুলো মনে করছে, যেহেতু লোকবল কম, সারা দেশে নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরই লোকবল দিয়ে তাদের সাহায্য করছিল। ফলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার ক্ষেত্রে সেটিও একটি কারণ বলে তাদের ধারণা।

যদিও আইইডিসিআর-এর কর্মকর্তারা এতদিন তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার অভিযোগ মানতে রাজি নন।

কিন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সূত্রগুলো বলেছে, আইইডিসিআ-এর পক্ষ থেকে নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষার কাজে বিলম্ব হওয়ার অনেক অভিযোগ আসে। সর্বশেষ তাদের ল্যাবে সমস্যা হওয়ায় ১৫০০ নমুনা পরীক্ষার জটে পড়ে গিয়েছিল। সেগুলো এখন বিভিন্ন ল্যাবে পাঠানো হচ্ছে।

অবশ্য বিশেষজ্ঞদের অনেকে আইইডিসিআর-এর কাছে পরীক্ষা ব্যবস্থাপনার নিয়ন্ত্রণ না রাখার পরামর্শ দিয়ে আসছিল।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের সাবেক একজন পরিচালক ডা: বে-নজীর আহমেদ বলেছেন, পরীক্ষার ক্ষেত্রে মাঠপর্যায়ের স্বাস্থ্যকর্মী এবং হাসপাতালগুলোর ওপর আইইডিআর এর কর্তৃত্ব নেই। ফলে তারা আইইডিসিআর-র কথা সেভাবে গুরুত্ব না দেয়ায় কাজের সমস্যা হয়।

সেজন্য তারা বিশেষজ্ঞদের বেশ আগে প্রতিষ্ঠানটির এই দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।

তিনি আরও বলেছেন, "আমরা যদি একটু দূরের দিকে তাকাতাম, তাহলে অনেক আগেই এরকম সিদ্ধান্ত দিতাম। এখন ঘাটতি যেটা হলো, আমাদের রোগতাত্ত্বিক নানাধরণের বিশ্লেষণ হয়নি। ফলে সে ধরণের কোন বিশ্লেষণ না থাকায় সিদ্ধান্ত নিয়ে এগুতেও সমস্যা হচ্ছে।"

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন ভাইরোলজিস্ট বলেছেন, সরকার তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ীই এতদিন আইইডিসিআর-এর কাছে পরীক্ষার সব দায়িত্ব দিয়ে রেখেছিল। কিন্তু এখন সংক্রমণের মাত্রা যখন খারাপের দিকে যাচ্ছে, তখন কারও ওপর দায় চাপিয়ে পরিকল্পনা বা সিদ্ধান্তে পরিবর্তন আনা হতে পারে বলে তিনি মনে করেন।

এসব বক্তব্য আবার মানতে রাজি নয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এই অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলেছেন, আইইডিসিআর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরেরই একটি প্রতিষ্ঠান। তারা একে অপরকে সহযোগিতার ভিত্তিতেই কাজ করছেন।

মানব ইতিহাসের সবচেয়ে প্রাণঘাতী মহামারি স্প্যানিশ ইনফ্লুয়েঞ্জা কীভাবে ছড়িয়েছিল

বিশ্ব মহামারি শেষ হতে কতদিন লাগবে?

চা, কফি বা গরম পানি খেয়ে কি ভাইরাস দূর করা যায়?

কাদের মাস্ক ব্যবহার করতে হবে আর কাদের জন্য জরুরি নয়

মহামারির মধ্যে সাধারণ রোগের চিকিৎসায় অচলাবস্থা